মংডুর জঙ্গলে আশ্রয় হাজারো নারী-শিশুর

Sharing

অন্যকন্ঠ: মিয়ানমারের মংডুর জঙ্গলে এখনো হাজারো রোহিঙ্গা নারী ও শিশু অবস্থান করছেন। জঙ্গল থেকে বের হলে প্রাণ হারাতে পারেন এই ভয়ে নাফ নদীর দিকে তারা অগ্রসর হতে পারছেন না। তাই বাধ্য হয়েই তারা জঙ্গলেই লুকিয়ে আছেন। রবিবার (১০ সেপ্টেম্বর) নাফ নদী পার হয়ে শাহপরীর দ্বীপে আশ্রয় নেয়া এক রোহিঙ্গা শরণার্থী এই তথ্য জানান। : রবিবার রাখাইন রাজ্যে নতুন করে আরও পাঁচটি গ্রামে আগুন দেয় মিয়ানমার সেনাবাহিনী। এরপরই রাত থেকে হাজার হাজার রোহিঙ্গা নাফ নদী পাড়ি দিয়ে শাহপরীর দ্বীপে আসেন। এদের মধ্যে একজন জাফর উল্লাহ। তিনি জানান, বাঘগুনিয়া, গর্জনদিয়া, খুইন্যাপাড়া, সায়ড়াপাড়া, মাঝেরডিগি ও মংডুর পাহাড় অঞ্চলের সব গ্রাম আগুন লাগিয়ে দিয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী। জাফর উল্লাহও তার পরিবার নিয়ে পালিয়ে এসেছেন। আসার সময় পথে আরও অনেক নারী, পুরুষ ও শিশুদের জঙ্গলের মধ্যে দেখে এসেছেন তিনি। তারা আসার অপোয় আছেন। খুইন্যাপাড়ার একটি পাহাড়ে এখনো অনেক নারী শিশু আছে। যারা আসতে পারছে না। প্রসঙ্গত, গত ২৪ আগস্ট : মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের নিরাপত্তা বাহিনীর ২৯টি নিরাপত্তা চৌকিতে রোহিঙ্গাদের সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরসা একযোগে হামলা করে বলে অভিযোগ করে সরকার। এরপরই ২৫ আগস্ট থেকে রাখাইন রাজ্যে মিয়ানমার সেনাবাহিনী অভিযান চালায়। রোহিঙ্গাদের বাড়িঘরে আগুন দেয়ার অভিযোগ তাদের বিরুদ্ধে। এতে কয়েক হাজার রোহিঙ্গার মৃত্যু হয়েছে। বাংলাদেশে পালিয়ে আসছে প্রায় ৩ লাখ রোহিঙ্গা। উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পে তাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে। প্রতিদিনই বিভিন্ন সীমান্ত পয়েন্ট দিয়ে ঢুকছে রোহিঙ্গারা।

« পূর্ববর্তী সংবাদ

Sharing